কৃতজ্ঞতা

Posted on

১৯৯৭ সালে বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্মশতবার্ষিকীতে নজরুলের জীবন ও সাহিত্যকর্ম বিষয়ে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিলাম৷ আমাদের কোন সংগঠন ছিল না বলে স্থানীয় একটি সংগঠনের অধীনে কাজটি বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল৷ অনুষ্ঠানের দ্বারলগ্ন এসে ওই সংগঠনের কর্তাব্যক্তিরা বেঁকে বসেন৷

অনুষ্ঠান আমরা করেছিলাম, তবে আশানুরূপ হয়নি৷ তখনই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, নিজস্ব প্রতিষ্ঠানের৷

১৯৯৭ সালের ২৭ ডিসেম্বর তারিখে আমরা কয়েকজন মিলে এডুলিচার ক্লাব নামে নিজস্ব সংগঠন প্রতিষ্ঠা করি৷ ওই দিনই আমরা ১৯৯৮ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি জাতীয় শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে আমাদের মুখপত্র ‘উন্মেষ’ প্রকাশের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি৷

এরপর আমরা পেছনে তাকাইনি আর৷ আমাদের স্বপ্ন ডালপালা মেলে মহীরূহে রূপ নিতে শুরু করে৷ আমরা স্থানীয় ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচী বাস্তবায়ন করি৷ প্রতিষ্ঠা করি নিজস্ব পাঠাগারের৷

এডুলিচারকে এগিয়ে নিতে যে সকল বন্ধু কঠোর পরিশ্রম করেছিল আজ কৃতজ্ঞচিত্তে তাদের নাম স্মরণ করছি৷

প্রথমেই বন্ধু মোতাসিম বিল্লাহকে স্মরণ করি৷ এডুলিচারের ইংরেজি বানান তারই দেওয়া৷ এছাড়াও বন্ধু জাহাঙ্গীর আলম, মাসুদ আলম, ওমর ফারুক, ফয়সাল পাটোয়ারীকে স্মরণ করি, এঁদের হাতেই এডুলিচার প্রাণ পেয়েছিল৷

দ্বিতীয় পর্যায়ে এডুলিচারকে এগিয়ে নিতে হাত বাড়িয়েছিল বন্ধু ও ছোট ভাই আলাউদ্দীন ভূঁঞা, ছোট ভাই মাসুদ আলমাহদী সহ আরও অনেকে৷ তবে এই দুজনের পরিশ্রম অন্য কারো সাথে তুলনীয় নয়৷

এডুলিচারের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে যাঁরা যথোপযুক্ত পরামর্শ ও সাহস যুগিয়ে সহযোগিতা করেছিলেন, তাঁরা হলেন লক্ষণপুর নূরুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক শামছুল হক বাবুল ও লক্ষণপুর ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মোহাম্মদ শফিক উল্লাহ৷ এডুলিচার পাঠাগারের জন্য সরকারী পরিত্যক্ত বাড়ি দান করেছিলেন লক্ষণপুর ইউনিয়ন পরিষদের তৎকালীন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী৷ এডুলিচারকে আর্থিক সহযোগিতায় অগ্রগামী ছিলেন ভাউপুরের মরহুম আবু সায়ীদ ভূঁঞা৷

এরপর… এক কুচক্রী মহলের ষড়যন্ত্রে রাতের আঁধারে লুটপাট হয়ে যায় এডুলিচার পাঠাগার ও অফিস কক্ষটি৷

এডুলিচার লুটে নিয়েছিল লুটেরারা, কিন্তু স্বপ্ন লুটে নিতে পারেনি কেউ৷ দীর্ঘদিন পর এডুলিচারকে পুনর্জীবিত করেছি সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগ ও অর্থায়নে৷

আজ স্বপ্ন যখন সত্য হয়ে উঠেছে তখন পূর্বেকার সে পরিশ্রমী নিঃস্বার্থ বন্ধুদের অকুণ্ঠচিত্তে স্মরণ করছি৷